February 24, 2024

সবসময় বজরং বাণ পাঠ করা উচিৎ নয়! কেন জানেন?

কোন পরিস্থিতিতে পাঠ করা উচিত বজরং বাণ

 

মহাবীর হনুমানকে প্রসন্ন করবার জন‍্য সবচেয়ে দুটি শক্তিশালী মন্ত্র হল হনুমান চালিশা এবং বজরং বাণ। আমরা সকলেই জানি হনুমান চালিশা নিত‍্য পাঠ করা যায় কিন্তু বজরং বাণ সবসময় পাঠ করতে নেই। কিন্তু কেন বজরং বাণ পাঠ সবসময় করতে নেই? অথবা অন্যভাবে বলতে গেলে কখন এবং কোন পরিস্থিতিতে বজরং বাণ পাঠ করা যেতে পারে?

আলোচনার প্রথমেই বলি বজরং বাণের উৎপত্তি নিয়ে। অধিকাংশ পন্ডিতের মতে বজরং বাণ রচনা করেন গোস্বামী তুলসীদাস। তিনি একবার কোন এক দুষ্ট তান্ত্রিকের কালাজাদুর প্রভাবে প্রচন্ড অসুস্থ হয়ে পড়েন। সেই অসুস্থতা থেকে বাঁচতে তিনি এই বজরং বাণ রচনা করেন।

 

এবার আলোচনা করি বজরং বাণ কখন এবং কোন পরিস্থিতিতে পাঠ করত হয়।

মাথায় রাখবেন যে মন্ত্রের পেছনে বাণ কথাটি থাকে সেই মন্ত্রটি এক অন‍্য মাত্রা পায়। আপনারা এই বজরং বাণ যখন পাঠ করবেন তখন দেখবেন এই মন্ত্রে অনেক তান্ত্রিক শব্দ জুড়ে রয়েছে। যেমন…

 

 ওঁ হ্নীং হ্নীং হ্নীং হনুমন্ত কপীসা ।

 ওঁ হুং হুং হুং হনু অরি উর সীসা ||

 

আবার

 

ওঁ চং চং চং চং চপল চলন্তা ।

ওঁ হনু হনু হনু হনু হনুমন্তা ॥ ইত্যাদি এই রকম তান্ত্রিক শব্দের প্রয়োগ দেখা যায় এই বজরং বাণে। আবার বজরং বাণ মন্ত্র খুব ভালভাবে লক্ষ করলে দেখা যায় যে এই মন্ত্র শ্রীরাম চন্দ্রের পরম ভক্ত বজরংবলীকে শ্রীরামের নামে শপথ দেওয়া হয়েছে বার বার। যেমন….

 

ইন্হে মারু,তোহি শপথ রাম কী ।

রাখু নাথ মরজাদ নাম কী ॥

 

আবার

 

উঠু,উঠু,চলু,তোহি রাম দুহাঈ ।

পায় পরৌ, কর জোরি মনাঈ ॥

 

তাহলে আপনারা বুঝতেই পারছেন এই মন্ত্র পাঠে রামজীর পরম ভক্ত হনুমানজীকে যিনি তার প্রভুর জন‍্য জীবনের সর্বস্ব দিয়ে দিলেন,নিজের প্রাণের বিন্দু মাত্র তোয়াক্কা করেন নি সেই হনুমানজীকে তার প্রভু শ্রীরামের শপথ দেওয়া হচ্ছে। আপনি নিশ্চিত রুপে আপনার কোন প্রয়োজনে এই বাণ পাঠ করছেন তাই আপনিও হনুমানজীকে আপনার কার্য সিদ্ধির জন‍্য প্রভু রামের শপথ দিচ্ছেন। তাই আপনার যদি খুব গুরুতর প্রয়োজন না হয় বা এমন কোন পরিস্থিতি এসে না পড়ে যে আপনার বা আপনার পরিবারের কারও প্রাণ সংশয় হতে পারে এমন কোন পরিস্থিতি ছাড়া বজরং বাণ কোন কার্য সিদ্ধির জন‍্য পাঠ করা উচিৎ নয়। তবে সকল মন্ত্রেরই একটি কার্যকারিতা রয়েছে। তাই আপনি যদি কোন উদ্দেশ্য ছাড়া বা কার্য সিদ্ধির জন্য ছাড়া এমনিতে নিত্য পাঠ করতে চান তাহলে করতে পারেন।

 

তাহলে খুব অল্প কথায় বলতে গেলে আপনার ভয়ংকর সংকট ছাড়া বা সাধারণ নিত্য পাঠ ছাড়া কোন ছোট ছোট প্রয়োজনে কখনই বজরং বাণ পাঠ করতে নেই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *