February 23, 2024

জীবনের দুর্দশা কাটাতে পাঠ করুন দুর্গা চালিশা এবং জানুন এর উপকারিতা

দুর্গা চালিশা ছাড়া মা দুর্গার পূজা অসম্পূর্ণ বলে মনে করা হয়। মা দুর্গার উদ্ভব হয়েছিল অধর্মকে নাশ করে ধর্মকে রক্ষা করতে। শাস্ত্র অনুসারে, কোনও শুভ অনুষ্ঠানে মা দুর্গার স্তব করার জন্য দুর্গা চালিসা পাঠ করা অত‍্যন্ত শুভ বলে মনে করা হয়। ভক্তরা যদি রোজ স্নান সেরে পরিস্কার বস্ত্র পরিধান করে মা দুর্গার ছবির সামনে লাল আসনের ওপর বসে ধূপ ও প্রদীপ জ্বালিয়ে এই দুর্গা চালিশা পাঠ করেন তাহলে তার জীবনের সমস্ত বাধা বিপত্তি দূর হয়ে জীবন হয়ে উঠবে সুখ ও সমৃদ্ধিতে ভরপুর।


Durga Chalisa



আসুন তাহলে দেখেনি দুর্গা চালিশা পাঠের উপকারিতা : 

  • দুর্গা চালিসা পাঠ করে আপনি আপনার পরিবারকে আর্থিক ক্ষতি, দুর্দশা এবং বিভিন্ন ধরণের দুঃখ থেকে রক্ষা করতে পারেন। অর্থাৎ আপনার জীবনে আর্থিক উন্নতি ঘটবে এবং জীবনের সমস্ত রকম সংকট দূর হবে।
  • প্রতিদিন দুর্গা চালিসা পাঠ করলে আপনার শরীরে Positive শক্তি আসে এবং সমস্ত Negative শক্তি দূরে যায় । 
  • মনকে শান্ত করতে চাইলে প্রতিদিন দুর্গা চালিসা পাঠ করুন।  বড় বড় ঋষিরাও মা দুর্গা চালিসা পাঠ করতেন, যাতে তারা তাদের মনকে শান্ত রাখতে পারেন।
  • যেকোনো শুভ অনুষ্ঠানে দুর্গা চালিসা পাঠ করলে একজন ব্যক্তির আধ্যাত্মিক শক্তির বিকাশ ঘটে। 
  • শত্রুদের মোকাবেলা করে তাদের পরাজিত করার ক্ষমতাও গড়ে ওঠে এই দুর্গা চালিশা পাঠ করে।
  • দুর্গা চালিসা পাঠ করলে আপনি আপনার যে সামাজিক মর্যাদা হারিয়েছেন তা পুনরুদ্ধার করতে পারে।
  • মা দুর্গার আরাধনা করলে আপনি নেতিবাচক চিন্তা থেকে দূরে থাকবেন।

শ্রী দুর্গা চালীসা


নমো নমো দুর্গে মুখ করনী।

নমো নমো আস্তে মুর্খ হানী।।

নিরংকার হ্যায় জ্যোতি তুমহারী।

তিঁহু লোক ফৈশী উজিয়ারী।।

শশি লিলার মুখ মহা বিশালা।

নেত্র লাল ভূকুটী বিকরালা।।

রূপ মাতু কো অধিক সুহাবে।

দরশ করত জন অতি সুখ পাবে।।

তুম সংসার শক্তি লয় কীনা।

পালন হেতু অন্ন ধন দীনা।।

অন্নপুরনা হুই জগ পালা।

তুম হী আদি সুন্দরী বালা।।

প্রলয়কাল সব নাশন হারী।

তুম গৌরী শিব শংকর প্যারী।।

শিব যোগী তুমহরে গুণ গাবে।

ব্রহ্মা বিষ্ণু তুমহে নিত ধ্যাবে।।

রূপ সরস্বতী কো তুম ধারা।

দে সুবুদ্ধি ঋষি মুনিন উবারা।।

ধরা রূপ নরসিংহ কো অঙ্গা।

পরগট ভই ফাড় কর খম্বা।।

রক্ষা করি প্রহলাদ বচায়ো।

হিরণাকুশ কো স্বর্গ পঠানো।।

লক্ষ্মী রূপ ধরো জগ মাহী।

শ্রী নারায়ণ অংগ সমাহী।।

ক্ষীরসিন্ধু মে করত বিলাসা।

দয়া সিন্ধু দীজৈ মন আসা।।

হিংগলাজ মে তুমহী ভবানী।

মহিমা অমিত ন জাত বখানী।।

মাতঙ্গী ধূমাবতী মাতা।

ভুবনেশ্বরী বগলা সুখ ধাতা।।

শ্রী ভৈরব তারা জগ তারিণী।

ছিন ভাল ভব দুঃখ নিবারিণী।।

কেহরি বাহন সোহ ভবানী।

লাঁগুর বীর চলত অগবানী।।

কর মেঁ খপ্পর খড়গ বিরাজে।

জাকো দেখ কাল ডর ভাজে।।

সোহে অস্ত্র ঔর ত্রিশুলা।

জাতে উঠত শত্রু হিয় শুলা।।

নাগ কোটি মেঁ তুমহী বিরাজত।

তিহুঁ লোক মেঁ ডংকা বাজত।।

শুম্ভ নিশুদ্ধ দানব তুম মারে।

রক্তবীজ শঁখন সঁহারে।।

মহিষাসুর নৃপ অতি অভিমানী।

জেহি অঘ ভার মহী অকুলানী।।

রূপ করাল কালী কো ধারা।

সেন সহিত তুম তিহি সংহারা।।

পরী গাঢ় সম্ভন পর জব জব।

ভই সহায়মাতু তুম তব-তব।।

অমর পুরী ঔরো সব লোকা।

তব মহিমা সব রহে অশোকা।।

বালা মেঁ হ্যায় জ্যোতি তুমহারী।

তুমহে সদা পুজে নর নারী।।

প্রেম ভক্তি সে জো জস গাবো।

দুঃখ দারিদ্র নিকট নহি আবে।।

ধ্যাবৈ তুমহে জো নর মন লাই।

জন্ম মরণ তাকো ছুটি জাই।।

জোগী সুর মুনি কহত পুকারী।

যোগ না হো বিন শক্তি তুমহারী।।

শংকর আচারজ তপ কীনোঁ।

কাম অরু ক্রোধ জীতি সব লীনোঁ।।

নিশি দিন ধ্যান ধরো শংকর কো।

কাহু কাল নহি সুমিরো তুমকো।।

শক্তি রূপ কো মরম না পায়ো।

শক্তি গই তব মন পছিতায়ো।।

শরণাগত হুই কীর্তি বখানী।

জয় জয় জয় জগদম্ব ভবানী।।

ভই প্রসন্ন আদি জগদম্বা।

দই শক্তি নহী কীন বিলম্বা।।

মোকো মাতু কষ্ট অতি ঘেরো।

তুম বিন কৌন হরে দুঃখ মেরো।।

আশা তৃষ্ণা নিপট সতাবে।

রিপু মুরখ মোহি অতি ডরপাবে।।

শত্রু নাশ কীজৈ মহারানী।

সুমিরোঁ ইক চিত তুমহেঁ ভবানী।।

করো কৃপা হে মাতু দয়ালা।

ঋদ্ধি সিদ্ধি দে করহু নিহালা।।

জব লগি জিয়ো দয়া ফল পাউঁ।

তুমহরো জস ম্যায় সদা সুনাউ।।

দুর্গা চালীসা জো গাবৌ।

সব সুখ ভোগ পরম পদ পাবে।।

দেবীদাস শরণ নিজ জানী।

করহু কৃপা জগদম্ব ভবানী।।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *